আস্ক টু আন্স প্লাটফর্মে আপনাকে স্বাগতম, সমস্যার সমাধান খুঁজতে প্রশ্ন করুন।।
0 টি ভোট
81 বার প্রদর্শিত
"বাংলা সাহিত্য" বিভাগে করেছেন (513 পয়েন্ট)

সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর প্রথম গল্পগ্রন্থের নাম কী?

"আমি অবাক হচ্ছি তোমার অকৃতজ্ঞতা দেখে"- এই অকৃতজ্ঞতার কারণ বুঝিয়ে লেখ।

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (513 পয়েন্ট)

উদ্দীপকঃ-

পিতার দরিদ্রতা সুভার পড়ালেখাকে ব্যাহত করতে পারেনি। কিন্তু পার্শ্ববর্তী গ্রামের প্রতিপত্তিশালী ও ধনবান কাঞ্চন মিয়া প্রভাব বিস্তার করে সুভাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। তার বাবা এ বিয়েতে রাজি হলেও রাজি হয়নি সুভা। সে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে বাবাকে সহযোগিতা করতে চায়। সুভাকে রাজি করাতে না পেরে কাঞ্চন মিয়া শেষ মুহূর্তে পিছু হটতে বাধ্য হয়।

ক) সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর প্রথম গল্পগ্রন্থের নাম কী?

খ) "আমি অবাক হচ্ছি তোমার অকৃতজ্ঞতা দেখে"- এই অকৃতজ্ঞতার কারণ বুঝিয়ে লেখ।

গ) উদ্দীপকের কাঞ্চন মিয়ার শেষ মুহূর্তের চেতনা 'বহিপীর' নাটকের বহিপীরের সাথে যে দিক দিয়ে সাদৃশ্যপূর্ণ তা ব্যাখ্যা কর।

ঘ) উদ্দীপকে সুভার চেতনা 'বহিপীর' নাটকের তাহেরার মতোই অগ্রগামী- বিশ্লেষণ কর।


উত্তরঃ-

ক) সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর প্রথম গল্পগ্রন্থের নাম 'নয়নচারা'।

খ) প্রশ্নোক্ত উক্তিটিতে তাহেরার হাশেম আলিকে বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি বোঝানো হয়েছে।কিশোরী তাহেরাকে বৃদ্ধ বহিপীরের কবল থেকে রক্ষা করতে চায় হাশেম আলি। প্রয়োজনে সে তাহেরাকে বিয়ে করতে চায়। কিন্তু তাহেরা তাকে ফিরিয়ে দেয় বিবেকের তাড়নায়। তখন খোদেজা রেগে গিয়ে প্রশ্নোক্ত উক্তিটি করে।


গ) বাস্তবতা উপলব্ধির বিষয়টিতে উদ্দীপকের কাঞ্চন মিয়ার সাথে বহিপীর নাটকের বহিপীরের সাদৃশ্য রয়েছে। বহিপীর নাটকে বহিপীরের ধর্মীয় অপব্যাখ্যার কবলে পড়ে তাহেরার অশিক্ষিত বাবা-মা তাকে বহিপীরের সাথে বিয়ে দেয়। কিন্তু সচেতন নারী তাহেরা এ বিয়ে মেনে না নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে আসে এবং বজরায় আশ্রয় নেয়। তখন বহিপীর নানা হীনকৌশল অবলম্বন করে তাহেরাকে পেতে চায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার সকল চেষ্টা ব্যর্থ হয়। এতে বহিপীর বাধ্য হয়ে সবকিছু মেনে নেয়।উদ্দীপকের কাঞ্চন মিয়া একজন প্রতিপত্তিশালী ও ধনবান ব্যক্তি। সে অর্থের লোভ দেখিয়ে দরিদ্র সুভাকে বিয়ে করতে চায়। কিন্তু সুভা তা মেনে নেয়নি। কারণ সে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে বাবাকে সহযোগিতা করতে চায়। এতে সবকিছু মেনে নিয়ে পিছু হটে কাঞ্চন মিয়া। নাটকে বহিপীরও বাস্তবতা উপলব্ধি করে হাশেম তাহেরাকে মেনে নেয়। তাই বলা যায় কাঞ্চন মিয়া ও বহিপীর দুজনেই বাস্তবজ্ঞান সম্পন্ন।


 ঘ) উদ্দীপকের সুভা নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায় যা তাকে 'বহিপীর' নাটকের তাহেরার মতোই অগ্রগামী করে তুলেছে।বহিপীর নাটকে তাহেরা কিশোরী নারী, তার বাবা-মা তাকে জোরপু বক বৃদ্ধ বহিপীরের সাথে বিয়ে দেয়। কিন্তু এ অন্যায় বিয়ে তাহেরা মেনে নেয় না। সে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় এবং বজরায় আশ্রয় নেয়। এ সময় তার পাশে দাঁড়ায় জমিদার পুত্র হাশেম আলি। তারা দুজনে মিলে বহিপীরের সকল হীন কৌশল প্রতিহত করে।উদ্দীপকে সুভা দরিদ্র বাবার মেয়ে। অভাবের কারণে তার বাবা তাকে বেশি দূর পড়াতে পারেনি। তার বাবার দরিদ্রতার সুযোগ নিয়ে কাঞ্চন তাকে বিয়ে করতে চায়। কিন্তু সুভা এ বিয়েতে মত দেয় না। সে স্পষ্ট জানিয়ে দেয় যে সে নিজের পায়ে দাঁড়াবে এবং বাবাকে সহযোগিতা করবে।


উদ্দীপকঃ-

 "ধর্মান্ধের ধর্ম নেই, আছে লোভ ঘৃণ্য চতুরতা মানুষের পৃথিবীকে শত খণ্ডে বিভক্ত করেছে তারা টিকিয়ে রেখেছে শ্রেণিভেদ ঈশ্বরের নামে ঈশ্বরের নামে তারা অনাচার করেছে জায়েজ।"

ক) কত সালে 'বহিপীর' নাটক পুরস্কার লাভ করে?

খ) "ইহা পরাজিত শত্রুর শেষ দাবি"- এই উক্তির প্রাসঙ্গিকতা বুঝিয়ে লেখ।

গ) উদ্দীপকের ভাব 'বহিপীর' নাটকের যে চরিত্রে প্রতিফলিত হয়েছে তা ব্যাখ্যা কর।

ঘ) 'বহিপীর' নাটকের সামগ্রিকতা উদ্দীপকের চেতনায় বিশ্বাসী নয়- মন্তব্যটির যথার্থতা নিরূপণ কর।


উত্তরঃ-

ক) ১৯৫৫ সালে বহিপীর নাটকটি পুরস্কার লাভ করে।

খ) বহিপীর তাহেরাকে পেতে ব্যর্থ হয়েও জমিদার হাতেম আলির জমিদারি রক্ষার্থে অর্থ সহায়তা করতে চায়- এ প্রসঙ্গে বহিপীর প্রশ্নোক্ত উক্তিটি করেছেন।বহিপীর জমিদার হাতেম আলিকে জমিদারি রক্ষার্থে অর্থসহায়তা দেবার বিনিময়ে তাহেরাকে পেতে চায়। কিন্তু এর আগেই তাহেরা হাশেমের সাথে' পালিয়ে যায়। বাস্তবতা মেনে নিয়ে তারপরও বহিপীর হাতেম আলিকে অর্থ সহায়তা দিতে চায় বলেই প্রশ্নোক্ত উক্তিটি করে।


গ) উদ্দীপকের ভাব 'বহিপীর' নাটকের বহিপীর চরিত্রে প্রতিফলিত হয়েছে।বহিপীর নাটকে বহিপীর একজন ধর্ম ব্যবসায়ী। সে ধর্মের নামে মানুষের সর্বস্ব লুট করে বেড়ায়। ধর্মীয় অপব্যাখ্যা দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করে। তার অপব্যাখ্যা শুনে মানুষ তাদের সর্বস্ব যেন তার তরে নিবেদন করে। মূলত সে ধর্মান্ধ মানুষের কুসংস্কারকে পুঁজি করে ধর্মব্যবসা পরিচালনা করে।উদ্দীপকে ধর্ম ব্যবসায়ীদের আগ্রাসনের কথা তুলে ধরা হয়েছে। আমাদের সমাজে অনেক মানুষ আছে যারা ধর্মের নামে নিজেদের স্বার্থোদ্ধার করতে তৎপর থাকে। তাদের কবলে পড়ে মানুষ নিজেদের মধ্যে বৈষম্যের সৃষ্টি করে। নাটকের বহিপীরও ধর্মের নামে এরপ অধর্মের বেসাতি চালাত। তাই বলা যায়, উদ্দীপকের ভাব নাটকের বহিপীর চরিত্রে প্রতিফলিত হয়েছে।


ঘ) উদ্দীপকে ধর্ম ব্যবসায়ীদের কথা তুলে ধরা হয়েছে যা 'বহিপীর' নাটকের সামগ্রিকতাকে স্পর্শ করতে পারেনি।বহিপীর নাটকে ধর্ম ব্যবসায়ীদের হীন তৎপরতার কথা তুলে ধরা হয়েছে। এখানে বহিপীর একজন ভন্ড, প্রতারক ও ধর্মব্যবসায়ী। সে ধর্ম দিয়ে মানুষকে কাবু করতে চায়। কিন্তু তাহেরা হাশেম তার অপব্যাখ্যা বিভ্রান্ত হয়নি। তারা রুখে দাঁড়িয়েছে বহিপীরের ধর্ম ব্যবসার বিরুদ্ধে। তাদের প্রতিবাদী চেতনার কাছে পরাজিত হয়েছে বহিপীরের সকল ভন্ডামি।উদ্দীপকে ধর্ম ব্যবসায়ীকে হীন চেষ্টার কথা তুলে ধরা হয়েছে। ধর্ম ব্যবসায়ীরা নিজেদের স্বার্থোদ্ধারে প্রতিনিয়ত মানুষকে বিভ্রান্ত করে বেড়ায়। মানুষে মানুষে সৃষ্টি করে নানা বৈষম্য। তাদের হীন স্বার্থের কবলে পড়ে মানুষ সবকিছু বিসর্জন দিতেও যেন মাঝে মাঝে কুণ্ঠিত হয় না।উদ্দীপকে ধর্ম ব্যবসায়ীদের আগ্রাসন বিদ্যমান। কিন্তু নাটকের সবাই ধর্ম ব্যবসায়ী বহিপীরের বশ্যতা স্বীকার করেনি। তাই হাশেম আলি ও তাহেরা এর প্রতিবাদ জানিয়েছে দৃঢ়ভাবে। তাই বলা যায় প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি যথার্থ হয়েছে।

Ask2Ans এ সুস্বাগতম, যেখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর 59 বার প্রদর্শিত
0 টি ভোট
1 উত্তর 62 বার প্রদর্শিত
07 নভেম্বর 2023 "বাংলা সাহিত্য" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Hasib (573 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর 65 বার প্রদর্শিত
05 জানুয়ারি "বাংলা সাহিত্য" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin (513 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর 29 বার প্রদর্শিত
29 ডিসেম্বর 2023 "বাংলা সাহিত্য" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin (513 পয়েন্ট)
...